1. admin@dailyamarsomoy.com : admin :
সাভারে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীতে জাল টাকা তৈরী, বিপুল পরিমান জাল নোট উদ্ধার, মেশিন ও উপকরন জব্দ,  আটক ৩ - দৈনিক আমার সময়

সাভারে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীতে জাল টাকা তৈরী, বিপুল পরিমান জাল নোট উদ্ধার, মেশিন ও উপকরন জব্দ,  আটক ৩

মোঃ শাহীনুর ইসলাম ধ্রুব নয়ন
    প্রকাশিত : বুধবার, ২৪ মে, ২০২৩
রাজধানীর সাভারে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরির অভ্যন্তরে জাল টাকা তৈরীর কারখানায় বিপুল পরিমান জাল টাকা, বিদেশী মদ, বিয়ার ও ইয়াবা সহ ৩ জনকে আটক করেছে সাভার মডেল থানা পুলিশ। এসময়, জাল নোট তৈরীর বিপুল পরিমাণ সরঞ্জামাদি,  উপকরণ উদ্ধার করা সহ ১২ টি মেশিন জব্দ করা হয় এবং সাউথ বেঙ্গল নামের সেই পোষাক কারখানাটির আড়ালে তৈরী হওয়া জাল নোটের কারখানাটি সিলগালা করে দেয়া হয়।
২৪ মে বুধবার দুপুর সাড়ে বারোটায় সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নের সাদাপুর বশির মার্কেট এলাকার পুরান বাড়ি নামক সেই জাল নোট তৈরীর কারখানার সামনে ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান পিপিএম বার প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, বুধবার (আজ) সকাল আনুমানিক নয়টার দিকে ভূয়া সাংবাদিক মোঃ সাখাওয়াত হোসেন খান (৫০) নামের এক জাল নোট কারবারি সাভার অন্ধ সংস্থা মার্কেটের সামনে লিচু কিনে এক হাজার টাকার জাল নোট দিলে লিচু ব্যবসায়ীর সন্দেহে হয়। পরে তাকে আটক করে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে তাকে আটক করে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করায় সে উক্ত কারখানাটির সন্ধান দেয়। আটককৃত সাখাওয়াতের দেয়া তথ্যমতে ঢাকা জেলা পুলিশ সুপারের সাথে পরামর্শ করে অতি দ্রুত সাদাপুরের সেই বশির মার্কেট এলাকার পুরান বাড়িতে থাকা গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে অভিযান পরিচালনা করে। এসময় শাখাওয়াত সহ নাজমুল হোসেন(২৪) ও সুজন মিয়া (৩০) নামের আরো দুজনকে আটক করে পুলিশ।
আটককৃত মোঃ সাখাওয়াত হোসেন খান বরিশাল জেলার মুলাদি থানার ডিগ্রিরচর গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদন খানের ছেলে। মোঃ নাজমুল হোসেন বরিশালের মুলাদি থানার বয়াতি কান্দি, রাগুয়া কাজিরচরের মোঃ মানিক মোল্লার ছেলে এবং সুজন মিয়া শরিয়তপুর জেলার পালং থানার গয়াধর গ্রামের আল-ইসলাম সরদারের ছেলে।
পুলিশ সুপার বলেন, আসন্ন কুরবানীর ঈদকে কেন্দ্র করে চক্রটি জাল নোট তৈরীর বিশাল টার্গেট নিয়ে কাজ শুরু করেছিলো। কিন্তু, বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর চৌকস ও দক্ষ পুলিশদের কারণে জাল নোট তৈরীর সাথে সম্পৃক্তরা বাজারে জাল নোট ছাড়ার আগেই পুলিশ তাদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।
তিনি আরও জানান, একজন সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা ও আরো বেশ কয়েকজনের নাম জানা গেছে। অত্যান্ত গভীর ভাবে বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। যারাই এই জাল নোট তৈরীর সাথে সম্পৃক্ত থাক না কেন তাদের সকলকেই তদন্ত সাপেক্ষে অতি দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে। এ সংক্রান্তে মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন।
এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ক্রাইম, অপস্ ও ট্রাফিক (উত্তর)-এর ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহিল-কাফি, সাভার সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহিদুল ইসলাম, সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দীপক চন্দ্র সাহা,  বিরুলিয়া ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই দিদার, ভবানীপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোকলেছুর রহমান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন
© All rights reserved © dailyamarsomoy.com