1. : admin :
রাজধানীর মোহাম্মদপুরে নবাবী ভোজ ও কেএফসি সহ  ৩টি রেষ্টুরেন্টে রাজউকের অভিযান ৯লক্ষ টাকা জরিমানা  - দৈনিক আমার সময়

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে নবাবী ভোজ ও কেএফসি সহ  ৩টি রেষ্টুরেন্টে রাজউকের অভিযান ৯লক্ষ টাকা জরিমানা 

আমিনুল ইসলাম বাবু 
    প্রকাশিত : সোমবার, ১১ মার্চ, ২০২৪
বেইলী রোডের অগ্নিকান্ডের পর নড়েচড়ে উঠেছে রাজউক। রাজধানীর বিভিন্ন বহুতল ভবনে অনুমোদন হীন ভাবে গড়ে তোলা হোটেল রেষ্টুরেন্টের নিরাপত্তা ও ভবন ব্যবহার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে রাজউকের এই নিয়মিত অভিযান। 
আজ সোমবার সকাল ১১ টার সময় রাজধানীর মোহাম্মাদপুর শিয়া মসজিদ সংলগ্ন ২৪/বি, রিং রোড প্রধান সড়কে অবস্থিত নূরানী ভবনের নবাবী ভোজ রেষ্টুরেন্টে রাজউকের উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয় রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জোন ৩ এর পরচালক তাজিনা সারোয়ার এর নেতৃত্বে। উচ্ছেদ অভিযানে ভবন মালিক রেষ্টুরেন্ট মালিক ও ভবন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানকে সম্মিলিত ভাবে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
পরবর্তীতে তাজমহল রোডের জেড ২৪/১ নং হোল্ডিং এর ১ম ও ৩য় তালায় অবস্থিত ফাস্টফুড চেইন সপ কেএফসি ও মুঘল এ্যাম্পায়ার  রেষ্টুরেন্টে অভিযান পরিচালনা করে রেষ্টুরেন্ট ২টি কে ২ লক্ষ টাকা করে ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। উক্ত ভবনের ৪র্থ তালায় অবস্থিত ক্লাব ম্যাক্স নামক রেষ্টুরেন্ট টিতে প্রয়োজনীয় বৈধ কোন কাগজ পত্র না থাকায় রেষ্টুরেন্টটিকে ম্যাজিস্ট্রেট ৩০ দিনের সময় প্রদান করেন রেষ্টুরেন্ট পরিচালনায় প্রয়োজনীয় সকল বৈধ অনুমোদন সংগ্রহ করতে, অন্যথায় রেষ্টুরেন্ট বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন।
উচ্ছেদ সম্পর্কে রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, রাজউকের ধারাবাহিক উচ্ছেদ অভিযানের পাশাপাশি বর্তমানে গড়ে উঠা অনুমোদনহীন রেষ্টুরেন্ট গুলো খুঁজে বের করা, রেষ্টুরেন্টে আগত অতিথিদের জীবনের নিরাপত্তা ও ভবনে বসবাসরত সকলের জীবনের নিরাপত্তা বজায় রাখার উদ্দেশ্যে কাজ করে যাচ্ছি। আজ আমরা ৫টি রেষ্টুরেন্টে অভিযান পরিচালনা করে ২টি রেষ্টুরেন্ট কে ৩০ দিনের মধ্যে বন্ধ করে দিতে বলেছি, নবাবী ভোজ রেষ্টুরেন্টকে, ভবন মালিক ও ডেভলপার প্রতিষ্ঠানকে ৫ লক্ষ টাকা, কেএফসি ও মুঘল এ্যাম্পায়ার রেষ্টুরেন্টকে ২ লক্ষ টাকা করে জরিমানা করে নগদ আদায় করা হয়। এছাড়াও ৫টি প্রতিষ্ঠানের নিকট থেকে ৩ শত টাকার ষ্ট্যাম্পে মুচলেকা নিয়েছি যেন তারা আমাদের দেয়া নির্দেশনা পালনে বাধ্য থাকে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ম্যাজিস্ট্রেট তাজিনা সারোয়ার জানান গত বছর আমরা ১৮ শত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছি এবং চলতি বছর আমরা ২ হাজারের অধিক মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার আশা করছি যদিও আমাদের জনবল কম।
উক্ত মোবাইল কোর্ট ও উচ্ছেদ অভিযানে রাজউক জোন ৩ এর সকল কর্মকর্তা ও ইমারত পরিদর্শকগণ উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন
© All rights reserved © dailyamarsomoy.com