১ মাসের উৎসাহ বোনাস পাচ্ছেন চট্টগ্রাম বন্দরের কর্মীরা

জাহাঙ্গীর আলম, বিশেষ প্রতিনিধিঃ মহামারী করোনার কারণে মন্ত্রণালয়ের দেওয়া লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ায় আপাতত ১ মাসেরর উৎসাহ বোনাস দেওয়া হচ্ছে চট্টগ্রাম বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের।

মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (প্রশাসন) এ সম্পর্কিত দপ্তারাদেশ জারি করেছেন।

চট্টগ্রাম বন্দরের প্রায় ৬ হাজার স্থায়ী, অস্থায়ী, ওয়ার্ক চার্জড কর্মকর্তা-কর্মচারী এ বোনাস পাচ্ছেন। দৈনিক ও সাময়িক প্রয়োজনে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এ বোনাসের আওতার বাইরে থাকবেন।

সূত্র জানায়, বন্দরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের উৎসাহ বোনাস স্কিমের ১৯৮৯ (সংশোধিত) আওতায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে কার্গো-কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ের জন্য প্রযোজ্য বোনাস স্কিমের ৪(১) ও ৮(১) ধারা অনুযায়ী আপাতত ৩০ দিনের ইনটেনসিভ দেওয়া হচ্ছে। ঈদুল আজহার ছুটির আগেই এটি পরিশোধ করা হবে।

চট্টগ্রাম বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক বলেন, বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ৭৫ দিনের ইনটেনসিভ পান। হ্যান্ডলিং ও আয়ের ওপর এটি দেওয়া হয় জুন ও জানুয়ারিতে। হ্যান্ডলিংয়ের ওপর ৪৫ দিনের ইনটেনসিভ থেকে করোনার কারণে মন্ত্রণালয়ের দেওয়া লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ায় আপাতত ১ মাসের দেওয়া হচ্ছে। বাকিটা কর্তৃপক্ষের বিবেচনাধীন রয়েছে।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্মচারী পরিষদের (সিবিএ) ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নায়েবুল ইসলাম ফটিক বাংলানিউজকে বলেন, কোরবানির আগে ১ মাসের ইনটেনসিভ দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। আশাকরি হ্যান্ডলিং টার্গেট যেহেতু করোনার কারণে পূরণ হয়নি তাই এটি রিভিউ করা হবে।

সূত্র জানায়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১০ কোটি ১৫ লাখ ৬৫ হাজার ২৭২ টন কার্গো (পণ্য) হ্যান্ডলিং হয়েছে বন্দরে। এর আগের অর্থবছরে যা ছিলো ৯ কোটি ৮২ লাখ ৪০ হাজার ৬৫৫ টন। এবার প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩ দশমিক ৪ শতাংশ।

বিশ্বের ১০০টি শীর্ষ কনটেইনার হ্যান্ডলিংকারী বন্দরের মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরের অবস্থান ৬৪তম। ৪০ ফুট ও ২০ ফুটের কনটেইনার বক্স আসে বন্দরে। হিসাবের সুবিধার জন্য ৪০ ফুটের কনটেইনারকে ২০ ফুটের দুইটি হিসাব করা হয়। সদ্য বিদায়ী অর্থবছরে এ বন্দর কনটেইনার হ্যান্ডলিং করেছে ৩০ লাখ ৪ হাজার ১৪২ টিইইউ’স (২০ ফুট হিসেবে)। আগের অর্থবছরে যা ছিলো ২৯ লাখ ১৯ হাজার ২৩ টিইইইউ’স। এবার প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২ দশমিক ৯ শতাংশ।

মহামারী করোনার কারণে চীন থেকে পণ্য আমদানি, এলসি খোলা, জাহাজ আসায় কিছুটা স্থবিরতা নেমে এসেছিলো কয়েক মাস। তারপরও সদ্য বিদায়ী অর্থবছরে বন্দর কর্তৃপক্ষ জেটি ও বহির্নোঙর মিলে জাহাজ হ্যান্ডলিং করেছে ৩ হাজার ৭৬৪টি। আগের অর্থবছরে (২০২৮-১৯) যা ছিলো ২ হাজার ৬৯৯টি। এবার প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১ দশমিক ৭৫ শতাংশ।