হ্যান্ড গ্লাভস-স্যানিটাইজার ছাড়াই সেবা চলছে শ্রীপুরের পোষ্ট অফিসে!

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর(গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ   মঙ্গলবার সকালে ৪৪৫৬৮৪৫১৩ (সিএন) রেজিস্ট্রার নাম্বার বসিয়ে মাওনা এলাকার একটি ঠিকানায় আসা চীন থেকে পাঠানো চিঠি গুছিয়ে নিচ্ছিলেন পোষ্টম্যান আব্দুস ছামাদ। এ সময় তার হাতে ছিলোনা হ্যান গ্লাভস বা স্যানিটাইজার। জানা যায়, প্রতিদিন শতশত স্ট্যাম্প রেভেনিউ ও কয়েক হাজার চিঠি গুছাইতে হয় তাকে। বর্তমান করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের পরিস্থিতিতে এভাবেই ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিনই কার্যক্রম চলছে গাজীপুরের শ্রীপুর পোষ্ট অফিসে।

২৫ মার্চ সকালে কবির হোসেন নামে এক গ্রাহককে নির্দিষ্ঠ দুরত্ব বজায় না রেখেই চিঠি বিতরণ করতে দেখা যায়। এছাড়াও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সামনে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা থাকলেও এখানে তেমন কিছু চোখে পড়েনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে পোষ্ট অফিসের কর্মচারীরা জানান, তাদের নিরাপত্তা সামগ্রী বিশেষ করে জীবানুমুক্ত করার কোনো কিছু দেয়া হয়নি।
সম্প্রতি করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন সেখানে কর্তব্যরত কর্মচারীরা।
কর্মীদের সুরক্ষায় ডাক বিভাগের জরুরি পদক্ষেপ নেয়ার দাবি করেন তারা।

উপজেলা পোষ্ট অফিস সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলা পোষ্ট অফিসের অধীনে ১২ টি শাখা অফিস রয়েছে। প্রতিদিন ২ হাজার চিঠি বিতরণ করা হয়। কয়েক হাজার টাকার ষ্টাম্প রেভেনিউ বিক্রি করা হয়। তবে, বর্তমান কর্মীদের সুরক্ষা দেয়ার কার্যত কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তবে সম্প্রতি করোনা রোধে নিজেদের উদ্যোগে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার কিনে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মৌখিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

  • এ ব্যাপারে সদ্য যোগদানকৃত উপজেলা পোষ্ট অফিসার সামসুল আলমের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

গাজীপুর জেলা পোষ্ট অফিস পরিদর্শক (আই.পিও) সালাউদ্দিন মোহাম্মদ মুসা জানান, করোনা ভাইরাসের কারনে সারা দেশে বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষীতে পোষ্ট অফিসের কর্মচারীদের নিজ নিজ দায়িত্বে সচেতন হতে হবে। বর্তমানে নিজস্ব ভাবে হ্যান্ড গ্লাভস লাগানো ও স্যানারাইজার ব্যবহার করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের পরবর্তী সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পোষ্ট অফিসের যাবতীয় কর্মকাণ্ড নির্ধারিত হবে বলেও জানান তিনি।