সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আকবরদের গণসংবর্ধনা দেবে সরকার

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দলের ঐতিহাসিক জয়ে অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা। এ বিজয় উদযাপন করা হবে। সেখানে খেলোয়াড়দের গণসংবর্ধনা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠক হয়। তাতেই টাইগার যুবাদের অভিনন্দন জানানো এবং গণসংবর্ধনা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। রাজধানীর তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার এ বৈঠক হয়।

সভা শেষে সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে প্রেস ব্রিফিং করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, সঠিক দিনক্ষণ দেখে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হবে।

রোববার পচেফস্ট্রমে ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো কেনো বিশ্বকাপ জিতেছে বাংলাদেশ। স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত কাদের।

তিনি বলেন, ঐতিহাসিক জয়ে তরুণ টাইগারদের আন্তরিকভাবে অভিনন্দন জানাই আমরা। দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে ক্রিকেট পরাশক্তি ভারতকে পরাজিত করেছে তারা। বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো আইসিসির কোনো বৈশ্বিক ইভেন্টে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছে। মন্ত্রিসভার বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, এ বিজয় আমরা উদযাপন করব।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বিজয়ী বীরদের গণসংবর্ধনা দেয়া হবে। তারা ফিরলে ভালো সময় দেখে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে। কারণ, স্বাধীনতার পর এবারই বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছি আমরা ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা আশা করি, একদিন বাংলাদেশ জাতীয় দলও বিশ্বকাপ জিতবে। এ জয় আমাদের প্রত্যাশা বাড়িয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে ক্যাপ্টেন আকবর যে ম্যাচিউরিটি দেখিয়েছে…। ৬ উইকেট পড়ার পর আমরা ভাবিনি জিততে পারব। তবু তার নৈপুণ্যে জিতেছি। অনন্য নেতৃত্বে সে যেভাবে দলকে বিজয়ের স্বর্ণ দুয়ারে টেনে নিয়ে গেছে, সেটা সত্যিই স্মরণীয় ঘটনা।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মনে করেন, গ্রাম থেকে খেলায়াড়দের তুলে আনতে তৃণমূল পর্যন্ত প্রশিক্ষণ জরুরি। তিনি বলেন, যুব বিশ্বকাপ বিজয়ের নায়ক আকবর। তার বাড়ি পিছিয়ে পড়া কুড়িগ্রাম। এ দলে পঞ্চগড়ের খেলোয়াড়ও রয়েছে। আমাদের বিকেএসপিতে তৃণমূলের প্রশিক্ষণ চমৎকার। এখানেই নতুন ক্রিকেটার তৈরি হয়।