ভারতীয় মিত্র বাহিনীর স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ করতে চাই : আ.ক.ম মোজাম্মেল

34

ভারতীয় মিত্র বাহিনীর স্মরণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে স্মৃতিস্তম্ভ করা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক। বৃহস্পতিবার দুপুরে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের জায়গা নির্ধারণের জন্য আশুগঞ্জ উপজেলার সোনারামপুর এলাকা পরিদর্শন করেন তিনি।

জায়গা পরিদর্শনকালে তিনি বলেন, সাত শতাধিক ভারতীয় সৈন্য আমাদের পাশে থেকে যুদ্ধ করে বাংলার মাটিতে শহীদ হয়েছেন। আমরা তাদের স্মরণে একটি স্মৃতিস্তম্ভ করতে চাই। যেহেতু আশুগঞ্জে বেশি যুদ্ধ হয়েছে তাই আমরা আশুগঞ্জের কোথাও স্মৃতিস্তম্ভটি করতে চাই।

এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের সন্তান কোনোভাবেই আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে না। যদি কোথাও সদস্য হয়ে থাকে, তাহলে তাদের বহিষ্কার করা হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকাজ সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কোনো অবস্থাতেই থেমে যাবে না। পর্যায়ক্রমে যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তি হচ্ছে। যারা খুব বড় যুদ্ধাপরাধী তাদের বিচারের কথা পত্র-পত্রিকায় ওঠে আসে, মানুষও জানতে পারে। যারা নিম্ন পর্যায়ে স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে- তাদেরও শাস্তি হচ্ছে। সেগুলো পত্র-পত্রিকায় আসে না বলে মনে হচ্ছে যে, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কাজ স্থগিত হয়ে গেছে। কিন্তু সেটা সঠিক নয়, বিচার কাজ চলমান আছে।

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, যারা মুক্তিযোদ্ধা নন, এমন ব্যক্তিরা আমাদের তালিকাভূক্ত আছে। যখনই ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাপারে অভিযোগ পাচ্ছি, তদন্ত করে তখনই তাদের উপাধি বাতিল করা হচ্ছে। এ কার্যক্রম অব্যাহত আছে। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা আগামী বাজেটে ১৫ হাজার টাকা করে করা হবে।

পরিদর্শনকালে মন্ত্রীর সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব এস.এম আরিফ উর রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান, আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সি, আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজিমুল হায়দার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর দফতর) আবু সাঈদ, বাংলাদেশ আইন সমিতির সভাপতি অ্যাড. কামরুজ্জামান আনসারী, আশুগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ইকবাল হোসেন ও আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ সালাউদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।