বেলারুশ সাংবাদিকের মুক্তির আকুতি বাবা-মায়ের

বিশ্ব নেতাদের কাছে নিজেদের ছেলের জীবন রক্ষার আবেদন জানিয়েছেন বেলারুশে আটক হওয়া সাংবাদিক ও আন্দোলনকর্মী রামান প্রোতাসেভিচ বাবা-মা। দ্য গার্ডিয়ানকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ দাবি জানান তারা। এ সময় রামানের মা বলেন, বিতর্কিত প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কো প্রশাসন তাকে হত্যা করার চেষ্টা করছে। তার শরীরে মারধরের চিহ্ণ রয়েছে। সাংবাদিক রামানের আইনজীবীকে তার সঙ্গে দেখা করতে দেয়া হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন তার বাবা। রামান কি সেখানে আছে এ নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তার বাবা সাবেক সেনা কর্মকর্তা দিমিত্রি প্রোতাসেভিচ। যদিও আটকের পর এক ভিডিও বার্তায় রামান জানিয়েছেন, তিনি সুস্থ আছেন। এ ঘটনায় মঙ্গলবার বেলারুশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। একে জঘন্য বলে বর্ণনা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সাংবাদিক ও আন্দোলনকর্মী রামানকে দ্রুত মুক্তি দেয়ারও দাবি জানিয়েছন বাইডেন। যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও দেশটির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ইউরোপের বেশিরভাগ দেশ। ব্রাসেলসে এক বৈঠকে ইইউর ২৭টি সদস্য দেশের নেতারা ইইউর এয়ারলাইন্সগুলোকে বেলারুশের আকাশ বর্জনের ঘোষণা দেন। একই সঙ্গে বেলরুশের ওপর অন্যান্য অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করেছে ইইউ। এ ঘটনাকে রাষ্ট্রীর সন্ত্রাস বলেছেন ইইউর এক নেতা। আর পশ্চিমা দেশগুলো বেলারুশের বিরুদ্ধে রায়ানএয়ারের বিমান ছিনতাইয়ের অভিযোগে এনেছে। গত সোমবার বিমানের গতিপথ ঘুরিয়ে আটক করা হয় বেলারুশ সরকারের কট্টর সমালোচক সাংবাদিক ও আন্দোলনকর্মী রামান প্রোতাসেভিচকে। ফ্লাইটটি গ্রিস থেকে লিথুয়ানিয়া যাচ্ছিল। বোমা থাকার অভিযোগে ফ্লাইটটিকে দ্রুত বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে ঘুরিয়ে নেয়া হয়। যদিও পরে সেখানে কোনো ধরনের বোমা বা বিস্ফোরক পাওয়া যায়নি। ওই ফ্লাইটে রামানের সঙ্গে তার প্রেমিকা সোফিয়া সাপেগাও ছিল। তাকেও বেলারুশে আটকে রাখা হয়েছে।