বিশ্বনাথে যাত্রীবাহী বাস ও সিএনজি মুখামুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ১ জন নিহত ২ জন আহত 

ফারুক আহমদ বিশ্বনাথ প্রতিনিধি:সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস ও (সিএনজি) অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে প্রাণ হারিয়েছেন সাইদুল  ইসলাম (২৩) নামে একজন যুবক তিনি স্হানীয় উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের দশপাইকা

গ্রামের মো: আবদুস সোবহানের ছেলে।

বুধবার ১৩ জানুয়ারী দুপুরে বিশ্বনাথ টু লামাকাজী বাজার

সড়কের নরসিংপুর নামক স্থানে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন দৌলতপুর ইউনিয়নের মির গাঁও গ্রামের ময়না মিয়ার ছেলে আবদুল মতিন (২৭) ও

দশপাইকা গ্রামের ছমকআলীর ছেলে কবির হোসেন (২৬)।

দুজনকেই সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও

হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়:- স্হানীয় উপজেলার দশপাইকা

থেকে ছেড়ে আসা নম্বরবিহীন সিএনজি ওই সড়কের

নরশিংপুর নামক স্থানে এসেসামনে থাকা একটি অটোরিক্সা

সিএনজিকে অভারট্যাক করতে গিয়ে বিপরীত দিক থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাস (জুবায়ের পরিবহন)  (সিলেট-জ ০৪-০০৭৯) মুখামুখি সংঘর্ষ খেয়ে দুমড়েমুছড়ে পড়ে যায় অটোরিক্সা সিএনজিটি।

ফলে ঘটনাস্থলেই নিহত হন সাইদুল ইসলাম।

এবং গুরুতর আহত হন মতিন ও কবির।

খবর পেয়ে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত

সাইদুলের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্যে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেলকলেজ ও হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা

হয়, এবং উভয় গাড়ী জব্দ করে থানায় নিয়ে যান।

গুরুতর আহত অবস্হায় মতিন ও কবিরকে সিলেট এমএজি

ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তাদের অবস্থা খুবইআশংকাজনক।

দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত

কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মুসা বলেন, নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্যে সিলেট এমএজিওসমানী মেডিকেল কলেজ ও

হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

বাস ও অটোরিক্সা (সিএনজি) জব্দ করা হয়েছে।

ঘটনার সাথে সাথে বাসের চালক-হেলপার পালিয়ে গেছে।