বাবার রিকশা বিক্রির ১৫ হাজারের সাথে ১লাখ টাকা হলেই বাঁচবে রামিম!

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর(গাজীপুর)প্রতিনিধিঃ   এ বছরের জানুয়ারী মাসের ১৭ তারিখ মায়ের কোল আলো করে পৃথিবীর বুকে আসছিল শিশুটি। জন্মের সময় তার মাথার পাশে একটা উঁচু ফোঁড়ার সাদৃশ্য কিছু একটা ছিল। বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে এটিও বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে মাথার চেয়েও বড় আকার ধারণ করে এটি। ছেলের চিকিৎসার খরচ জোগাড় করতে না পেরে নিজের উপার্জনের একমাত্র রিকশাটিও ১৫,০০০ টাকায় বিক্রি করেছেন অসহায় বাবা। কিন্তু শিশুটির অপারেশন করানোর জন্য প্রয়োজন আরও ১,০০০০০ টাকা। অসহায় পরিবারের পক্ষে এক সাথে এতো টাকা জোগাড় করা কোনো মতেই সম্ভব নয়। তাই ফুটফুটে শিশুটির চিকিৎসার খরচ প্রার্থনা করে আকুতি জানিয়েছেন গাজীপুর জেলার শ্রীপুরের রিকশা চালক মকবুল।

১৭ মার্চ সরেজমিনে শিশুটির বাড়ীতে গিয়ে বিষয়টি সম্পর্কে জানা যায়।

অসুস্থ শিশু মোঃ রামিম (২ মাস) উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নের আবদার গ্রামের রিকশা চালক মকবুল হোসেনের ছেলে। তার মা নাজমা বেগম একজন গৃহিনী।
শিশুটির চাচা আবু বকর সিদ্দিক জানান,জন্মের কিছুদিন পর থেকেই গাজীপুর সদর ও ঢাকা শিশু হাসপাতালের ডাক্তার দেখানো হয়েছে। বাবা গরীব রিকশা চালক। শিশুটির অপারেশন ও ঔষসহ ১,৫০,০০০ টাকা প্রয়োজন। অসহায় পরিবার এতো টাকা কোথায় পাবে। তাই এলাকাবাসী কিছু সহয়তা করেছে । বাকি টাকা হলে ময়মনসিংহের ডেন্টাল হাসপাতালে অপারেশনের ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ লোকমান হোসেন জানান, আমার কাছে শিশুটিকে গত সপ্তাহে নিয়ে আসা হয়েছিল। আমি পরামর্শ দিয়েছি অপারেশন করানোর জন্য।

শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ ফতেহ আকরাম দোলন জানান, এ রোগের নাম সিস্টিক হাইগ্রোমা। এটি একটি জন্মগত ত্রুটি। বয়স বাড়ার সাথে সাথে এটিও বাড়তে থাকে। তবে, অপারেশনের মাধ্যমে এ রোগ হতে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

তেলিহাটি ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ড সদস্য তারেক হাসান বাচ্চু জানান, শিশুটির বাবা একজন অসহায় রিকশা চালক। তার উপার্জনের একমাত্র রিকশাটিও বিক্রি করেছে ছেলের চিকিৎসার জন্য। আমাদের পক্ষ থেকে যতটা সম্ভব চেষ্টা করা হয়েছে। অন্যান্য বিত্তবান ব্যক্তিরা যদি সহায়তা করতে এগিয়ে আসে তবেই ইনশাআল্লাহ হয়তো শিশুটি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে বলে আমি মনে করি।

চিকিৎসার খরচ হিসেবে সহোযোগিতা পাঠানোর বিকাশ –
০১৭১৮০২৫৭৫১ অসুস্থ শিশু ছেলের চাচা।