প্রবাসীরা আমাদের সমাজের ও রাষ্ট্রের মানুষ

এইচ এম মেহেদী হাসান: আমাদের কারও সন্তান, কারও পিতা,কারও ভাই,কারও আত্মার বন্ধন। জীবনের চাকা ঘুড়াতে কিংবা রাষ্ট্রের চাকা সচল করতে নিজের রক্তের বন্ধন দূরে ঠেলে দিয়ে প্রবাসে শত কষ্ঠের মাঝে, নিজের মাথার ঘাম পায়ে ফেলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কষ্টার্জিত উপার্জন নিজের দেশে পাঠাচ্ছে। অথচ দেশের মাটিতে-ই আজ তারা প্রবাসী। করোনাভাইরাস(কোভিড-১৯) এর কারণে সারা পৃথিবী ছিন্নভিন্নের মতো হয়ে পড়েছে। এটা বৈশ্বিক সংকট। এটা বিশ্ব সংস্থার ঘোষণা অনুযায়ী মহামারী। সুতরাং এতে কারও প্রশ্ন নেই,বা থাকার কথাও না। সমস্যা অন্য জায়গায়। সমস্যাটা সচেতনতার অভাবে। সমস্যাটা ন্যাড়ো মাইন্ডের। সমস্যাটা কিছু মিডিয়ার অপপ্রচার কিংবা সোস্যাল মিডিয়ার অপপ্রচার প্রবাসীদের জীবনের বারোটা বাজিয়ে দিয়েছে। আজ তারা নিজ দেশে প্রবাসীর চাইতেও বড় প্রবাসীর জীবন যাপন করে যাচ্ছেন। কিছু ক্ষেত্রে তাঁদেরকে বাঘের চাইতেও বেশি ভয়ানক মনে করছে সমাজের কিছু মানুষ। কোভিড-১৯ সম্পর্কে যাদের বিন্দুমাত্র ধারণা নাই। যারা একসময় আপনজন আত্মীয় স্বজন বলে পরিচয় দিতে গর্ববোধ করতো। অথচ আজ তারা-ই সেই প্রবাসীর চরম শত্রুু কিংবা চোখের পলকে অপরিচিত মুখের মানুষে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের কিছু তথ্য পাওয়া গিয়েছে, তা চরম হতাশার ও দুঃখজনকও বটে। অনেক ক্ষেত্রে নিজের রক্তের বন্ধন দূরে ঠিলে দিয়েছে অথচ দুইদিন আগেও যাঁরা মাথায় তুলে রাখতে কিছু আর্থিক বা অন্যান্য সুযোগসুবিধা পাওয়ার আশায়। তা নিমিশেষে-ই শেষ। ২০২০ সালের ৮ মার্চ থেকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্ত হওয়ার পর থেকে এমনভাবে প্রচার করো হলো যে,বিদেশ থেকে যিনি এসেছেন তিনি-ই কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত। সুতরাং তাঁদের থেকে দূরে থাকো, এতে করে তাঁদের প্রতি সমাজে বিরুপপ্রকৃিয়া সৃষ্টি হয়েছে এবং মানুষ খুবই দ্রুত গ্রহণ করে প্রবাসীদের বাঘের চাইতেও বেশি ভয়ানক ভাবতে শুরু করে। কিন্তু একবারও তাদের মনে হয়নি এই প্রবাসীরা আমাদের দেশের অর্থনীতির বহুলাংশে বাব মা। যাঁদের ঘাম ঝড়ানো রেমিটেন্সে আজ বাংলাদেশ অনেকটা-ই স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। তবে এখানে অনেকেই বলে থাকেন প্রবাসীরাও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেননি। সেটাও যেমন সত্য, আবার সেটাও মনে করা উচিত নয় যে, সব প্রবাসীরা দায়িত্বশীল ছিলেন না। বেশির ভাগ প্রবাসী-ই আইইডিসিআরের নির্দেশ মেনে হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকেছেন। আবার কেউ আইইডিসিআরের তত্বাবধানে কোয়ারেন্টাইনে থেকেছেন। তবে এখানে যতি কোনো গ্যাপ থেকে থাকে সেটা আমাদের দেশের বিমানবন্দরের কতৃপক্ষের। সেটার দায়দায়িত্বতো রেমিটেন্স যোদ্ধারা নিতে পাড়ে না। সুতরাং যেটা হয়েছে সেটা আদৌ উচিত হয়নি। তবে কিছু প্রবাসী অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছেন ইমিগ্রেশন কর্মকর্তাদের সঙ্গে, সেটাও কাম্য নয়। তবে আগেই উচিত ছিল প্রবাসীরা দেশে আসলে তাঁদের কিভাবে হ্যান্ডেলিক করা যায়, সেই বিষয়ে পরিকল্পনা করা এবং সেই মোতাবেক কাজ করলে রেমিটেন্স যোদ্ধাদের সাথে এমন হওয়া সম্ভবনার কোনো কারণ হতো না। হয়তো করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ কে পরাজিত করে বিশ্ব এগিয়ে যাবে, সেই সঙ্গে বাংলাদেশও সংকট কাটিয়ে আবার সবকিছু ঠিকঠাক করে এগিয়ে যাবে বীরদর্পে। কিন্তু দাগ থেকেই যাবে, এটা কখনও মুঁছে যাবেনা। যেহেতু করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ মারাত্মকভাবে ছোঁয়াচে একটি ভাইরাস। সেই ক্ষেত্রে কোয়ারেন্টাইন শতভাগ নিশ্চিত করে যদি প্রবাসীরাও একটু এগিয়ে আসতো, সেই ক্ষেত্রে মনে হয় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হতো না। যা হোক প্রবাসীদের নিয়ে এই ধরণের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ভবিষ্যতে বেশি কাজে দিবে। একটু ভিন্ন প্রসঙ্গে আসা যাক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র আহবানে সাড়া দিয়ে বেশির ভাগ প্রবাসীরা বৈধ পথে অর্থ পাঠাচ্ছে দেশে। আর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও ঘোষণা দিয়েছেন যারা বৈধ পথে অর্থ পাঠাবে সরকার তাদের দুই শতাংশ প্রণোদনা দিবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, একটা সময় সবাই নিজের সম্পদ বিক্রি করে বিদেশ গিয়ে ব্যর্থ হয়ে সর্বশান্ত হয়ে ফিরে আসতো। তাই অভিবাসীদের সহযোগিতার জন্য অভিবাসী কল্যাণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করে সরকার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জোড়ালোভাবে বলেন, বিদেশগামী কেউ প্রতারণার শিকার হলে রিক্রুটিং এজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্হা নেয়া হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র সেই রেমিটেন্স যোদ্ধাদের সাথে করোনার নামে যাচ্ছে তা আচরণ দেশের অধিকাংশ মানুষই মেনে নেয়নি। সুতরাং কিছু মানুষের দেওয়া কাঁটার আঘাত আপনারা একটু সহ্য করে নেন। আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা আপনাদের জন্য ভালোবাসার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। আপনাদের কষ্টে তিনিও মর্মাহত। দেশের এই ক্রান্তিকালে আপনারাও দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। আপনাদের ঋণের কথা দেশের মানুষ কখনও ভুলে যায়নি।মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ও প্রবাসীদের অগ্রণী ভূমিকা ছিল। জাতি আজও তা স্মরণ করে শ্রদ্ধার সাথে। কিছু নেতিবাচক প্রচার প্রচারণা আমাদের রক্তের সম্পর্কে আলাদা করতে কখনোও পাড়বে না। বাংলাদেশ আমাদের মাতৃভূমি, আমাদের বাবা মা, আমরা তাঁর সন্তান। সুতরাং সন্তানকে কখনও পিতা -মাতা ভুলে থাকতে পাড়ে না। আর সন্তানও পিতা-মাতাকে ভুলে থাকতে পাড়ে না। ক্ষণিকের জন্যে মায়ের কাছ থেকে দূরে থাকলেও মা ঠিকই সন্তানের জন্য পথ চেয়ে বসে থাকে। সুতরাং এই সংকটকালে প্রবাসীদের পাশে আছেন আমাদের, আমাদের মাতৃভূমি। পুরো দেশ আপনাদের পাশে রয়েছে। যেহেতু কোভিড-১৯ সামাজিক দূরত্বের কারণ। কিন্তু হৃদয়ের বন্ধন ঠিকই আছে। আত্মার বন্ধন ঠিকই আছে। শুধুমাত্র বাহ্যিক দৃষ্টিতে আমরা দূরত্ব বজায় রেখেছি, আমাদের স্বার্থে, আমাদের মাতৃভূমির স্বাথে। আমাদের মাকে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে, আপনার আমার কলিজার টুকরা সন্তানকে কোভিড-১৯ থেকে বাঁচাতে আমাদের এই সামাজিক দূরত্ব ক্ষণিকের জন্যে। পুরো বিশ্ব আজ একই নিয়মে চলছে, নেই কোনো ধর্মের নিয়ম, নেই কোনো ধনী গরীব রাষ্ট্রের আলাদা নিয়ম। নেই কোনো বৈষম্য। শুধুই সৃষ্টিকর্তার পানে সবার একটাই চাওয়া, মুক্ত করো আমাদের এই অভিশাপ থেকে, মুক্ত করো আমাদের এই দূরত্বের বৈষম্যের হাত থেকে। নেই কোনো প্রতিষেধক, নেইকোনো প্রতিকার।

শুধুমাত্র সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা। প্রকৃতির পছন্দমত একাকীত্ব থাকা। বারবার সাবান বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোঁয়া, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকা, সচেতন থাকা। সবই একই নিয়মে চলছে পুরো বিশ্ব। ক্ষণিকের জন্যে হলেও প্রকৃতি আমাদের সবাইকে একই নিয়মে চলতে বাধ্য করেছে। সুতরাং এখানে কেউ আর প্রবাসী নয়, সবাই যেনো নিজ দেশে পরবাসীর জীবনযাপন করছে। মহান সৃষ্টি কর্তার কাছে আমরা সবাই আজ প্রবাসী হয়েছি। অনেক সময় দেখা যায় প্রবাসীরা শুধু কোভিড-১৯ এর কারণেই হেনস্তা হয়েছেন, তা কিন্ত নয়। অনেক সময় দেশে আসলে এয়ারপোর্টে হয়রানির শিকার হতে হয়। অবশ্য সেটা এখন প্রায় শূন্যের কাছাছি আছে। বর্তমান সরকার প্রবাসী বান্ধব সরকার। প্রায় এক কোটি চল্লিশ লক্ষ প্রবাসী বাংলাদেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে রেখেছেন। নিজেদের পায়ের ঘাম পায়ে ফেলে। গত দশ বছরে প্রবাসীদের কাছ থেকে ১৫৩ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স এসেছে দেশে। প্রবাসীদের প্রেরিত রেমিটেন্স দেশের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি। একটি সময়ের দেশের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি তৈরি পোষাক শিল্পকে পাশ কাটিয়ে দেশের বর্তমান মূল চালিকা শক্তি বৈদেশিক কর্মসংস্হান। গত কয়েক বছর ধরে তৈরি পোষাক শিল্পের কর্মকর্তারা এই খাতকে চল্লিশ লক্ষ শ্রমিক নিয়োজিত আছে বলে দাবি করে আসছে। কিন্তু বর্তমানে বিশ্বের একশত তিহাত্তর দেশের এক কোটি চল্লিশ লক্ষের অধিক প্রবাসী বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত থেকে রেমিটেন্স প্রেরণের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির চাকা স্বচ্ছল করতে শক্তি যোগান দিয়ে যাচ্ছে নিরলসভাবে। সেই প্রবাসীদের সাথে আমাদের সম্পর্কটাও আত্মার। সুতরাং যা ইচ্ছে তা-ই করা আমাদের পায়ে কুড়াল মারার সমতুল্য। ঘরের লক্ষীকে পায়ে ঠেলে দেওয়ার মতো। প্রবাসীদের জন্য বর্তমান সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ার মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। কোনো নেতিবাচক সংবাদ বা নেতিবাচক সমাজের মনোভাব যেনো আমাদের এই রেমিটেন্স যোদ্ধাদের দেশের প্রতি বিমুখ না করে। সেই বিষয়গুলোও কিন্তু খেয়াল করতে হবে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ২০১৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষণা দিয়েছিলেন যে আগামী পাঁচ বছরে বিদেশে এক কোটি আঠাশ লক্ষ কর্মসংস্হান সৃষ্টির ঘোষণা দেন। তা এখন বাস্তবায়ন হয়েছে শতভাগ এবং কি টার্গেটের চাইতেও বেশি কর্মসংস্হান সৃষ্টি হয়েছে প্রবাসে। এই পরিকল্পনার আওতায় প্রতি বছর গড়ে প্রতি উপজেলা থেকে এক হাজার দক্ষ জনশক্তি বিদেশে প্রেরণের পরিকল্পনা রয়েছে বলেও ইশতেহারে বলা হয়েছিল। আর তার ধারাবাহিকতায় আজ দক্ষ জনশক্তি বিদেশে প্রেরণ করা হচ্ছে। বর্তমানে বিশ্বের অনেক দেশেই দক্ষ জনশক্তির অভাবে অর্থনীতির চাকা অচল হয়ে পড়ছে। সেসব দেশ অন্য দেশ থেকে শ্রমিক নিয়ে এসে তাদের অর্থনীতিকে স্বচ্ছল করছে। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ১৯৭৫ সাল থেকে বিদেশে জনশক্তি রপ্তানি শুরু করেছে বাংলাদেশ। অনেকে হয়তো মনে করতে পাড়েন, ধান ভানতে সিঁদুরের গীতের মতো আমি বিভিন্ন দিক তুলে ধরেছি। আমরা বাঙালি জাতি, নগদে বিশ্বাসী, অল্পতেই আবার ভুলে যাই। তাই একটু মনে করিয়ে দেওয়ার প্রচেষ্টামাত্র। অথচ গ্রামে প্রবাসী দেখলেই অনেকেই এখন শঙ্কিত হচ্ছেন, তাঁদের আড় চোখে দেখছেন, বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে হয়রানি করছেন। এমন গেছে প্রবাসীরা আসলে সবাই দেখার জন্য বা আত্মীয় স্বজন চলে আসতো, আজ সেই তারা-ই অন্যরকম। এই সংকটময় পরিস্থিতিতেও অন্যরকম থাকা দোষের নয় কিন্তু ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশটা যেনো নিষ্ঠুর না হয়।এখানে আরেকটি বলি এই কোভিড-১৯ এর সময়, এই বৈশ্বিক সংকটের সময় প্রবাসীদের দেশে আসার সুযোগ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত কতোটুকু সঠিক ছিল সেটারও এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। তবে প্রবাসীদের সরকার যদি দেশে আসতে নিষেধাজ্ঞা দিতো, তবে সেটাও তাঁদের সাথে অন্যায় হতো। প্রবাসীরা অনেক পর তাঁর পরিবারের সাথে মিলিত হবেন। প্রবাসীরা তো যখন তখন দেশে আসতেও পাড়েন না। সুতরাং সবকিছু মিলিয়ে উভয় সংকট। তবে সব সংকটেরই উত্তরণ আছে। অনেকের অভিযোগ দেশে আসার পর তাঁদের সঙ্গে কোয়ারেন্টাইনের নামে যা কিছু করা হয়েছে সেটাও কাম্যনয়। আমিও মনে করি অতিরঞ্জিত করা হয়েছে। এতে উপকারের চাইতে ক্ষতি হয়েছে বেশি। আবার অনেকেই বলেন, প্রবাসীরাও নিয়ম মানছেননা। এটা হয়তো ঠিক,কিন্তু এর অর্থ এই নয় যে,রেমিটেন্স যোদ্ধাদের সাথে যাচ্ছে তা-ই আচরণ করবেন। রেমিটেন্স যোদ্ধা বাদ দেন প্রবাসীরা তো আমাদের দেশেরই সন্তান। তাঁদের ভালো মন্দের ভাগ আমরাই তো ভাগাভাগি করে নেবো। যেহেতু তাঁদের দেশে আসার ক্ষেত্রে কোনো বাঁধা ছিলোনা, আমাদের মতে এয়ারপোর্টে আসামাত্র তাঁদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্হা সরকারের করা উচিত ছিল। কিন্তু তা না করে আমরা তাঁদের সাথে খারাপ আচরণ করেছি। আবার এই প্রশ্ন যাকে বাংলাদেশের মতো দেশের-ই বা এতো সংখ্যক প্রবাসীদের কোয়ারেন্টািইনে রাখার সক্ষমতা কতোটুকু ছিল ঐ মুহূর্তে। বিপুল সংখ্যক প্রবাসীরাও কিন্তু পাঁচ তারকা মানের হোটেল ছাড়া কোয়ারেন্টাইনে থাকতে রাজি ছিল না। তাই সরকারও কিছুটা সী তিল করেছে। বর্তমান সরকার সবকিছু বিবেচনা করে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা কিন্তু এখনও প্রশংসার দাবি রাখে। আইইডিসিআরের ভূমিকাও প্রশংসা রাখে। একটা বলতেই হয় যুদ্ধের শুরু ভালো মানে অর্ধেক বিজয়। এই কথার রেশ ধরে বলতে হয় বাংলাদেশ সঠিক পথেই হাটছে। বিশেষ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা’র সরাসরি তদারকির কারণে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ মারাত্মক আকার ধারণ করতে পাড়েনি বাংলাদেশে। বিশ্বের উন্নত দেশের দিকে তাকালেই সেই পার্থক্য দেখতে পাই। আমাদের দেশের সন্তান অর্থাৎ ঘরে সন্তান ঘরে এসেছেন, আপনারা এখন প্রবাসী নন। আপনারা আপনার দেশে এসেছেন, আপনারা-ই সিদ্ধান্ত নিবেন আপনার কোভিড-১৯ এ মারাত্মক আকার ধারণ করবে না কি সুরক্ষায় থাকবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র মনোভাব আপনরা অবশ্যই বুঝতে পেড়েছেন, তিনি আপনাদের জন্য তাঁর সবটুকু ভালোবাসা দিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছেন প্রিয় মাতৃভূমিকে কোভিড-১৯ থেকে হেফাজত করতে। সুতরাং প্রবাসীদের প্রতি কেউ ড যাহাতে অযথা খারাপ আচরণ না করেন, সেই বিষয়ে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় সচেতন রয়েছেন। আর আমাদের উচিত মানবিক মানুষ হওয়া। বিপদের বন্ধুই প্রকৃত বন্ধু।

মানুষ প্রকৃত বন্ধু চিনতে পারে যখন,সে কোন বিপদের মুখে পথিত হয়। বিপদে না পড়লে আসল বন্ধু চেনা যায়না। সুসময়ে বন্ধু বটে অনেকের হায়, অসময়ে হায় কেউ কারোনয়। প্রবাসীদের সঙ্গে আমাদের বন্ধুত্ব যেনো শুধু সু সময়ের বন্ধুত্ব না হয়, তাঁদের সাথে যেনো আমাদের অসময়ের বন্ধুত্বও হয়। আর না হয় আমাদেরকে অকৃতজ্ঞ জাতি হিসেবে কলঙ্কের ভাগীদার হতে হবে। সুতরাং আমি মনে করি এই বৈশ্বিক সংকটের সময় যদি আমরা একে অপরের প্রতি সহিষ্ণুতা দেখাতে পাড়ি তবেই আমরা সাকসেস হবো। মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। আমাদের ভালোবাসা শুধুমাত্র লোক দেখানো নয়, সেটার প্রমাণ দেওয়ার জন্য পৃথিবীতে এখনই মোক্ষম সময়। সুতরাং এই পৃথিবী ভালোবাসায় গদ্যময়। বাংলাদেশের প্রতিটি পাড়া মহল্লায় যাঁরা-ই প্রবাসী ভাই বোনেরা এসেছে তাঁদের সাথে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আমরা আমাদের সত্যিকারের ভালোবাসা প্রকাশ করবো। কোনো ঘৃণা নয়, কোনো অবজ্ঞা নয়, সবকিছু-ই ভালোবাসার বন্ধনে, তবেই তো আমরা সত্যিকারের মানুষ। ইতিমধ্যেই সরকারের সব পদক্ষেপে বাংলাদেশ অনেকটাই কোভিড-১৯ থেকে সুরক্ষায় আছে। বিশেষ করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকাও প্রশংসনীয়। ডাক্তার, নার্সদের অবদান জাতি কোনোদিন ভুলতে পাড়বে না। সাংবাদিকদের ইতিবাচক সংবাদ প্রবাসীদের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করছে। আমাদের দেশটা ছোট্র কিন্তু জনসংখ্যা অনেক। আমাদের সম্পদের সীমাবন্ধতা থাকতে পাড়ে কিন্তু আমাদের ভালোবাসা, আমাদের আন্তরিকতার যেনো কোন মাপকাঠি না থাকে। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উক্তি দিয়ে আজকের লেখার ইতি টানছি – গোলাপ যেমন একটি বিশেষ জাতের ফুল, বন্ধু তেমন একটি বিশেষ জাতের মানুষ।

লেখক; কলামিস্ট, সাবেক সহসভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।