জনপ্রিয় হচ্ছে অনলাইনে কোরবানির পশু বেচাকেনা

হাটের জনজট, পথের যানজট, দালালদের দৌরাত্ম্য, ছিনতাইয়ের ভয়, জাল টাকা আর নানান ঝক্কি ঝামেলা থেকে পরিত্রাণ পেতে কোরবানীর পশু ক্রয়ের জন্য অনেক নগরবাসী এখন অনলাইনে ঝুঁকছেন। ডিজিটাল মার্কেটে দিন দিন বড় হচ্ছে কোরবানির পশুর হাট। দ্রুত বাড়ছে জনপ্রিয়তাও। এই অনলাইন মার্কেটে কেনাকাটায় অনেক সুবিধা। ছবি ও গুনাগুন দেখে ফোনালাপে দরদাম করে বেছে নেয়া যায় কোরবানীর পশু।

উন্মক্ত প্রান্তরে পশুর হাটের মতো বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ঢুকে পছন্দমতো গরু-ছাগল কেনার সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইছেন না অনেকেই। মোবাইলে বা কম্পিউটারে গরু দেখে, পছন্দ করে অর্ডার করলেই হলো। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান নির্দিষ্ট সময়ে কোরবানির পশু বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে। দাম মেটানোর জন্যও রয়েছে বিভিন্ন মাধ্যম। ডেবিট কার্ড, বিভিন্ন পেমেন্ট মাধ্যমে (মোবাইল ব্যাংকিং) দাম পরিশোধ করা যাচ্ছে। এছাড়া রয়েছে ক্যাশ অন ডেলিভারি বা হাতে বুঝে পেয়ে দাম পরিশোধের ব্যবস্থা।

এসব ব্যবস্থার কারণে কোরবানির ডিজিটাল হাট এরইমধ্যে মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। শুধু গরু-ছাগল খরিদই নয়, কোরবানি দিয়ে বাড়িতে গোশত পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থাও করছে অনলাইন প্রতিষ্ঠানগুলো। আবার পশু জবাই ও গোশত কাটার কাজ করার জন্য পেশাদার কসাইয়ের খোঁজও দিচ্ছে অনেক অনলাইন প্রতিষ্ঠান।

মুলত: ভিড় ঠেলে দরদাম করে হাট থেকে পশু কিনে আনার ঝামেলা থেকে যাঁরা দূরে থাকতে চান, তাঁদের জন্য বড় স্বস্তি হয়ে এসেছে অনলাইন পশুর হাট নেই হাঁসুলী দেয়ার চরম বিড়ম্বনা। ক্রমবর্ধমান এই অনলাইন হাটের বিজ্ঞাপনে সয়লাব এখন ফেসবুকসহ সোসাল মিডিয়া। কেউ কেউ ইউটিউব এবং টেলিভিশনেও বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন।

অনলাইন প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালনা কারিদের সাথে কথা বলে যানা গেছে,গত বছর কোরবানি ঈদে তাদের বিক্রি হয়েছিল ছয় হাজারের বেশী পশু। এবার টার্গেট ২০ হাজার। অনলাইনে যেসব ওয়েবসাইটে কোরবানীর পশুর হাটের জনপ্রিয়তা পেয়েছে তার মধ্যে রয়েছে: ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম প্রিয়শপ ডটকম, বেঙ্গলমিট, বিক্রয় ডটকম, আমেরিকান ডেইরি, দেশি মিট, দারাজ, প্রিয়শপ, আমার দেশ আমার গ্রাম প্রভৃতি।

এসব প্রতিষ্ঠান বিজ্ঞাপনে বলছে, তাদের গরুর বিশেষত্ব হচ্ছে অর্গানিক খাবার খাওয়ানো এবং গৃহ পরিবেশে লালন-পালন করা। জানা গেছে, মুলত দেশের খামারিরা এই অনলাইন হাটগুলোতে পশু সরবরাহ করছেন। বিক্রয় ডটকম পশু বিক্রি শুরু করে ২০১৫ সালে। প্রতিষ্ঠানটির বিপণন বিভাগের প্রধান ঈশিতা শারমিন বলেন, আমরা ৫ বছর ধরে অনলাইনে কোরবানির পশু বিক্রি করছি। ক্রেতাদের সাড়া প্রতিবছরই বাড়ছে। এবার ১০ হাজারের বেশি কোরবানির পশু বিক্রির বিজ্ঞাপন রয়েছে আমাদের সাইটে।

তিনি জানান, এছাড়া বিরাট হাট নামের একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন রয়েছে সাইটে।