চট্টগ্রাম ভ্যাট কমিশনারেট’র সাথে বিজিএমইএ নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ

জাহাঙ্গীর আলম চট্টগ্রাম

বাংলাদেশে পোশাক শিল্প সংকটকালীন সময়ে স্থানীয় ক্রয়ের বিপরীতে উৎসে মূসক কর কর্তন থেকে পোশাক শিল্পকে অব্যাহতি প্রদানের জন্য বিজিএমইএ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে প্রস্তাবনা পেশ করেছে। পোশাক শিল্প সংশ্লিষ্ট সেবা খাতে উৎসে মূসক কর আদায়ে নমনীয় ভাব পোষন সহ কার্যক্রম সহজীকরণে ভ্যাট কর্মকর্তাদের অনুরোধ জানান বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল।

এছাড়া ভ্যাট আইন ও বিধিমালা সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে অবহিত হওয়ার জন্য কর্মশালা আয়োজনের জন্য তিনি কমিশনারকে পরামর্শ দেন।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর ) চট্টগ্রামস্থ কাস্টম এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট মোহাম্মদ আকবর হোসেন এর সাথে বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম নেতৃত্বে সংগঠনটির নেতারা সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

বিজিএমইএ নেতারা ভ্যাট কমিশনারেট কার্যালয়ের সৈকত সম্মেলন কক্ষে মতবিনিময় করেন।

সভায় বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন- ২০২০ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসজনিত উদ্ভুত পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের তৈরী পোশাক শিল্পে চরম বিপর্যয় নেমে এসেছিল। তখন প্রায় ৩.৭৫ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানী আদেশ বাতিল / স্থগিত হয়েছে। জাতীয় অর্থনীতিতে এর ব্যাপক নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া ইতিমধ্যে দৃশ্যমান। বর্তমান পুনঃ করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক মন্দাবস্থায় বর্হিঃবিশ্বে তৈরী পোশাকের মূল্য দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে, কিন্তু দেশে পোশাক শিল্পের আভ্যন্তরিন নানাবিধ খরচ বৃদ্ধি পেয়ে পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠান সমূহ ক্রমাগত লোকসানের মধ্যেও স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি প্রতিপালন পূর্বক উৎপাদন কার্যক্রম সচল রেখে বিগত দিনের ক্ষয়-ক্ষতি কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রচেষ্ঠা অব্যাহত রেখেছে।

কাস্টমস্ এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ আকবর হোসেন বলেন- জাতীয় আর্থ-সমাজিক উন্নয়ন সহ কর্মসংস্থানে পোশাক শিল্পের ভূমিকা প্রশংসা করে বর্তমান সংকটকালীন পরিস্থিতি বিবেচনায় পোশাক শিল্প সংশ্লিষ্ট উৎসে মূসক কর আদায়ে কার্যক্রম সহজীকরণ করা হবে। এছাড়াও জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক নির্ধারিত উৎসে মূসক কর কর্তন বিষয়ে পারস্পরিক যোগাযোগ ও সচেতনতা বৃদ্ধি সহ মূসক আইন ও বিধিমালা সম্পর্কে বিজিএমইএ’র সদস্যগণ সঠিক ভাবে অবহিত হওয়ার জন্য প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে মর্মে আশ্বাস প্রদান করেন।

বিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী- কমিশনারের ইতিবাচক ভূমিকার প্রশংসা করে বলেন মূলতঃ দেশের অর্থিৈনতক প্রবৃদ্ধি গতিশীল রাখার স্বার্থেই পোশাক শিল্পকে সংশ্লিষ্ট সকলের নিজ অবস্থান থেকে সহানুভূতিশীল মনোভাব নিয়ে এগিয়ে আসা উচিত।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন- বিজিএমইএ’র পরিচালক সর্বজনাব তানভীর হাবিব, এ.এম. শফিউল করিম (খোকন), মিরাজ-ই-মোস্তফা (কায়সার), বিজিএমইএ কাষ্টম বিষয়ক স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ও প্রাক্তন পরিচালক অঞ্জন শেখর দাশ, ট্যাক্স ও ভ্যাট বিষয়ক স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ও প্রাক্তন পরিচালক সাইফ উল্ল্যাহ মনসুর সহ পোশাক শিল্পের মালিক বৃন্দ।

ভ্যাট কমিশনারেটের পক্ষে আরো উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি কমিশনার শহিনুল কবির পাভেল প্রমুখ।