ঘাটারচর মিলিনিয়াম সিটির পশুর হাট অবৈধ হওয়ায় বন্ধ

এনামুল হাসান (স্টাফ রিপোর্টার)

শনিবার (১৭ জুলাই) ঢাকার কেরানীগঞ্জে বছিলা সংলগ্ন ঘাটারচর মিলিনিয়াম সিটির খালি জায়গায় বসা কোরবানির পশুর হাট অবৈধ হওয়ায় তা বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। সরকারি অনুমতি বা ইজারা ছাড়াই বসানো হয়েছিলো এই হাট। হাটটি বন্ধের জন্য আটিবাজার হাটের ইজারাদার সোহাগ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন। পরে গত ১৬ জুলাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে অবৈধ এ হাটটি উচ্ছেদের নির্দেশ দেয়া হয়। তবে তা উপেক্ষা করেই উপজেলা প্রশাসনকে একপ্রকার বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ক্ষমতার দাপটে হাট কর্তৃপক্ষ তাদের হাটে পশু বিক্রয়ের কার্যক্রম চালু রেখেছিল।

শনিবার সকালে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মধু সিটির উল্টো দিকে মিলিনিয়াম সিটির খালি যায়গায় বসা অবৈধ এ হাটের পেছনের জায়গায় চলছিল বাঁশ, খুটি গেরে তা বড় করার কাজ। হাটের প্রবেশ দ্বারে ছিলো হাট কর্তৃপক্ষের নিজস্ব ক্যাডার বাহিনীর বড় একটি দল। এ সময় তারা কোরবানির পশু বোঝাই অনেক গাড়ি জোর করে অবৈধ এ হাটের ভিতর নিয়ে যাচ্ছিলো। যেখানে ভেতরে আগে থেকেই পশুর বেপারীরা ছিলেন আতংকে।

গরুর বেপারী রহিম শেখ (ছদ্দ নাম) বলেন, আমার ১১টা গরু নিয়া এই হাটে আইছি। এখন শুনতাছি হাট নাকি অবৈধ। ভয় লাগতাছে কখন পুলিশ আয়া হাট বন্ধ কইরা দেয়। এতোগুলা গরু লয়া অন্য হাটে যাইতে অনেক ঝামেলা সাথে মেলা খরচ। মনে হয় পুরা লসে পইরা যামু।

অন্য আরেক বেপারী বলেন, অবৈধ হাটে জাইনাশুইনা আমগো ঢুকাইলো ক্যান? এরা আমগো লগে খারাপ করছে। পুলিশের ভয়ে গরু নিয়া বইসা আছি। কহন আইসা হাট বন্ধ কইরা দেয় কে জানে। আল্লাহ হাট এলাগো বিচার করবো।

পরে বিকেলে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইকবাল হাসান এর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে অবৈধ এ হাটটি বন্ধ করে দেয়া হয়। এ সময় অভিযানে সহায়তা করে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ ও র‍্যাব-১০ এর একটি দল।

উপজেলা সূত্রে জানা যায়, এ বছর কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় কেরানীগঞ্জে ১৮ থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত অস্থায়ী ৫টি কোরবানির পশুর হাট ইজারা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যেখানে মিলিনিয়াম সিটির এ হাটটি অস্থায়ী হাটের তালিকায় নেই। পাশাপাশি সরকারি কোনো অনুমতি ছাড়াই তারা হাট বসিয়ে পশু বেচা বিক্রি করছিল।