গাজীপুরে নিটল মটরস্ ডিপোতে ডাকাতি ঘটনার আসামী গ্রেফতার ও ব্যবহৃত পিকআপ উদ্ধারসহ মামলার রহস্য উদঘাটন

মাজহারুল ইসলাম রবিন,গাজীপুর প্রতিনিধি- গাজীপুরে বিগত ২৯ নভেম্বর ২০১৯ ইং তারিখের ডিবি পুলিশ পরিচয়ে নিটল মটরস্ লিঃ এর গাড়ীর ডিপোতে ডাকতির ঘটনার আসামী গ্রেফতার ও লুন্ঠিত মালামাল বহনকারী পিকআপ উদ্ধারসহ মামলার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গাজীপুর জেলা। গত বছরের ২৯ নভেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ তারিখে সন্ধ্যা অনুমান ১৮.২০ ঘটিকার সময় প্রতিদিনের ন্যায় বাদী সদর থানাধীন গজারিয়াপাড়া সাকিনস্থ নিটল মটরস্ লিঃ এর নতুন গাড়ীর পন্যাগারের (ডিপোর) চাবি দায়িত্বরত সিকিউরিটি গার্ডদের বুঝে দিয়ে সালনা এলাকায় বাসায় চলে যান। ২৯ নভেম্বর ২০১৯ তারিখ রাত অনুমান ২১:০০ ঘটিকার সময় প্রথমে ০৪ জন অজ্ঞাতনামা ডাকাত বাদীর উপরোক্ত প্রতিষ্ঠানের বাউন্ডারীর গেইটে নক করে সিকিউরিটি গার্ডদের কাছে নিজেদেরকে ডিবি পুলিশ বলে পরিচয় দেয় এবং তাদের ধাওয়াকৃত আসামী বাউন্ডারী ওয়াল টপকিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেছে এমন মিথ্যা কথা বলে গেইট খোলার জন্য অনুরোধ করে। সিকিউরিটি গার্ড ডিবি পুলিশ পরিচয়ে আসামী ধরতে সাহায্যের কথা ভেবে বাউন্ডারীর গেইট খোলার সাথে সাথে অজ্ঞাতনামা ০৪ জন ডাকাত ভেতরে প্রবেশ করে সিকিউরিটি গার্ডদের সাথে কথা বলতে বলতে অফিসের নিকট আসে। ঐ সময় ডাকাতরা ধারালো ছোরা, চাপাতি, চাকু, লোহার রড, পিস্তল ইত্যাদি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বাউন্ডারীর গেইট দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করে সিকিউরিটি সুপার ভাইজার,গার্ড এবং ড্রাইভারদের মারপিট করে অস্ত্রের মুখে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়ে রঁশি ও কাপড় দ্বারা হাত-পা,চোখ-মুখ বেঁধে তাদেরকে অফিস রুমে আটকে রাখে। পরবর্তীতে ডাকাতদল ষ্টোর রুমের তালা ভেঙ্গে নগদ ৫৩,২১০/-টাকাসহ সিকিউরিটি গার্ড এবং ড্রাইভারদের ব্যবহৃত মোট ০৫টি মোবাইল ফোন, অফিসের ভেতর এবং বাহির হতে ০৪টি কম্পিউটার হার্ডডিস্ক, ০৩টি ল্যাপটপ, ৩টি ইউপিএস, সিসকো সুইচ, ডিজিটাল ক্যামেরা, ৩২টি নতুন ব্যাটারী, পার্কার ফিল্টার, হাইড জ্যাক, ব্রেকেট, নতুন টায়ার, পুরাতন টায়ার, হুইল রিম, পুরাতন ব্যাটারী, কুইক ব্যাটারী চার্জার মেশিন, ব্যাটারী হেল্পিং ক্যাবল, পুরাতন রেডিয়েটর, ওয়েল্ডিং মেশিনসহ বিভিন্ন মালামাল যার সর্বমোট আনুমানিক মূল্য-১৪,৮৮,৮১০/-টাকা লুট করে ডাকাতদের সাথে আনা অজ্ঞাত নাম্বারের একটি মিনি ট্রাকে তুলে ৩০ নভেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ তারিখ রাত আনুমান সাড়ে বাবটায় প্রতিষ্ঠানের মূল গেইট দিয়ে পালিয়ে যায়। মামলাটি পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এর নির্দেশে তদন্তভার পিবিআই,গাজীপুর এর উপর ন্যাস্ত হলে উপ-পুলিশ পরিদর্শক মোঃ সুমন মিয়া-কে তদন্তভার দেয়া হয়। পিবিআই তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পুলিশ পরিদর্শক মোঃ সুমন মিয়া ডাকাতির ঘটনায় জড়িত ডাকাতদের গ্রেফতার ও লুট করা মালামাল উদ্ধারের বিষয়ে তদন্ত শুরু করে। ডিআইজি পিবিআই জনাব বনজ কুমার মজুমদার, বিপিএম (বার), পিপিএম এর সঠিক তত্ত¡াবধান ও দিক নির্দেশনায় পিবিআই গাজীপুর ইউনিট ইনচার্জ পুলিশ সুপার, জনাব মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান এর সার্বিক সহযোগিতায় তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পুলিশ পরিদর্শক মোঃ সুমন মিয়া মামলাটি তদন্তকালে অত্র মামলার ঘটনায় জড়িত হাজতী আসামী  রাজিব মিয়া (পটল) ১৯ ও  শরীফ (২৫), উভয় পিতা-আলমগীর, সাং-রুদ্রপুর, থানা-জয়দেবপুর, জেলা-গাজীপুরদ্বয়কে আবেদনের প্রেক্ষিতে আটককৃত আসামীদেরকে গত ০৭ নভেম্বর ২০২০ইং  তারিখে পুলিশ রিমান্ড নিয়ে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে মহামান্য হাইকোর্ট ডিভিশনের নিদের্শনা অনুসরন পূর্বক উক্ত আসামীদেরকে নিভিরভাবে জিজ্ঞাসাবাদে আসামীগণ এই মামলার ঘটনায় সরাসরি জড়িত ছিল বলে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে। আসামীগন পুলিশ রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাতির ঘটনায় ব্যবহৃত লুটকৃত মালামাল বহনকারী পিকআপের সন্ধান দেয়। আসামীদের তথ্যের ভিত্তিতে তাদের সঙ্গে নিয়ে অভিযান পরিচালনাকালে তাদের সনাক্ত করা ডাকাতিকালে ব্যবহৃত মালামাল বহনকারী একটি নীল-হলুদ রংয়ের জেক মিনি পিকআপ যার নম্বর ঢাকা মেট্রো-ন-১৭-৬১১৬ গাজীপুর জেলার শ্রীপুর থানাধীন মাওনা গড়গড়িয়া মাষ্টার বাড়ি গিলারচালা এলাকা হতে উদ্ধার করে পিবিআই। ০৮ নভেম্বর ২০২০ইং  তারিখে জেক মিনি পিকআপ জব্দ তালিকা করে হেফাজতে নেয়া হয়। আসামী  রাজিব মিয়া  (পটল) ও শরীফ নিজেদেরকে জড়িয়ে তাদের অপর সহযোগী আসামীদের নাম ঠিকানা প্রকাশ করে ঘটনার বিবরণ দিয়ে সেচ্ছায় বিজ্ঞ আদালতে ফৌঃকাঃবিঃ এর ১৬৪ ধারা মোতাবেক ইং ০৮ নভেম্বর ২০২০ ইং তারিখে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে। মামলার ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার ও লুট করা  মালামাল উদ্ধারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানানো হয় পিবিআই গাজীপুর।