কবর খননের ৩ বছর ধরে মৃত্যুর প্রতীক্ষায় শ্রীপুরের শতবর্ষী আমীর আলী!

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর(গাজীপুর) থেকেঃ–বয়স ১০০ বছর ছুঁই ছুঁই। পাঁচ বছর বয়সে বাবার মৃত্যুর পর জীবন সংসারে রীতিমতো সংগ্রাম করেই বেঁচে আছেন তিনি। দাম্পত্য জীবনে এক মেয়ে আর এক ছেলে থাকলেও শেষ বয়সে কেউ পাশে নেই। তাই নিজের কবর নিজেই খনন করে ৩ বছর ধরে মৃত্যুর প্রতীক্ষায় চেয়ে আছেন গাজীপুরের শ্রীপুর পৌর এলাকার কৃষক আমীর আলী ওরফে পচুঁ।

৩ অক্টোবর শনিবার সকালে পৌর এলাকার লোহাগাছ গ্রামের তার নিজ বাড়ীর আঙিনায় খননকৃত কবরের পাশে কথা হয় তার সাথে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নিজের শরীরের সঠিক মাপ দিয়ে ৩ বছর পূর্বে কবর খনন করেছেন তিনি। কবরের ভেতরের চারদিক ইট দিয়ে পাকাকরণ করে দিয়েছেন । এছাড়াও কবরের উপরে টিনের ছাউনি ও এর চারদিকে পাটখড়ির বেড়ায় তৈরি করেছেন ছাপড়া ঘর।

আমীর আলী ওরফে পচুঁ স্থানীয় মৃত জহর আলী মোল্লার ছেলে। তিনি কাটাখালী ছিরছিন্দ নগর পাক দরবার শরীফের একজন মুরিদ।

মৃত্যুর আগেই কবর খননের রহস্য জানতে চাওয়া হলে দীর্ঘ নিশ্বাস ফুঁকে তিনি বলেন, এ যুগে কেউ কারো নয়। জীবিত অবস্থায়ই আমার স্বজনরা কাছে আসতে চায় না। মরার পরে তাদের জন্য অপেক্ষা করার দরকার কী। তাই নিজের চিরস্থায়ী ঘর নিজেই বানালাম।

দরবার শরীফের নির্দেশনায় কবর খনন করে রেখেছেন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, মানুষের মৃত্যু নিশ্চিত। তাই মরার আগেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।

স্থানীয় আরফান সরকার বলেন, মৃত্যুর আগে কবর খননের বিষয়টি আর কোথাও শুনিনি। কেননা, মানুষের কি অবস্থায় মৃত্যু হবে তা নিশ্চিত করে কেউ বলতে পারেনা। তাই সামাজিক ভাবে বিষয়টি সমাধান করা উচিৎ।

শ্রীপুর পাকা জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা মুফতী মামুনুর রশীদ জানান, কোরআন হাদিস অনুযায়ী মৃত্যুর আগে কবর খনন করে রাখার কোনো বিধান নাই। কেননা, সে কোন স্থানে এবং কি অবস্থায় মৃত্যুবরণ করবে তা জানা নেই। আর মৃত্যুর পরবর্তী সময়ই তার কবর খননের স্থান নির্দিষ্ঠ হতে হবে । যদি কেউ মৃত্যুর আগে কবর খনন করে রাখে অবশ্যই সে তা ভুল করেছে। এছাড়াও, কবর পাকাকরণের বিষয়টি সম্পুর্ণই শরীয়ত বিরোধী কাজ। সার্বিক বিবেচনায় আমীর আলীর কবর খননের বিষয়টি এসরাফ।