কক্সবাজারে হবে “ওয়েলকাম টু সার্ফিং সিটি” ভাস্কর্য

শিপন পাল, কক্সবাজার সদর প্রতিনিধিঃ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন, কলাতলী মোড়ে হাংগরের ভাস্কর্যটি কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত সম্পর্কে বিদেশি পর্যটকদের ভীতি ছড়ায়। তারা মনে করেন সৈকতে হিংস্র হাংগর আছে। অথচ কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলে হিংস্র হাংগর নেই। সুতরাং সেখান থেকে হাংগরের ভাস্কর্যটি সরাতে হবে। এসময় প্রতিমন্ত্রী পলক কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, কলাতলী মোড়ে সার্ফিং ভাস্কর্য স্থাপন করা জন্য। সেই ভাস্কর্যটি হবে, “ওয়েলকাম টু সার্ফিং সিটি”। যা বিদেশিদের কাছে কক্সবাজারকে সার্ফিং সিটি হিসেবে তুলে ধরবে। গত শনিবার ১৫ ফেব্রæয়ারি কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে ফ্রিঃ ওয়াইফাই এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

পলক বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়বে তরুণ সমাজেই। তরুণ সমাজ তথা ও প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। এখন আর বিদেশে শ্রমিক হিসেবে যেতে হবে না। নিজ জেলা কক্সবাজারে বসে প্রযুক্তির মাধ্যামে আয় করতে পারবে। এতে প্রযুক্তি নির্ভর অর্থনৈতিক দেশ গড়ে তোলা সম্ভব।

এসময় অতিথির বক্তব্যে আয়োজনকারি কউক চেয়ারম্যান লে.কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমদ এলডিএমসি পিএসসি বলেন, কক্সবাজারে সবকিছু আছে। বড় মনের মানুষের মাধ্যমেই ওই শহরের পরিবর্তন ঘটানো সম্ভব। প্রধানমন্ত্রী মানুষের ভাগ্যেও উন্নয়নের জন্য কক্সবাজারে সবকিছু দিচ্ছেন। “ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পকে সমগ্র বিশ্বের সামনে উপস্থাপনের লক্ষ্যেই বিনামূল্যে ইন্টারনেট সেবা প্রদানের এই ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের গুরুত্বপূর্ণ ৩৫টি স্পটে ফ্রি ওয়াই-ফাই চালু করা হয় ওইদিন। এই সেবার আওতায় আনা হয়েছে শহরের সুগন্ধ বীচ পয়েন্ট, সাইমন বীচ পয়েন্ট, লাবনী বীচ পয়েন্ট, কলাতলী বীচ পয়েন্ট, বিয়াম ভবন, ডলফিন চত্বর হোটেল মোটেল রোড, জাম্বুর মোড়, রূপচাঁদা ভাস্কর্য, সাম্পান ভাস্কর্য স্টার ফিস ভাস্কর্য, হলিডে মোড়, প্রেসক্লাব, পুরাতন স্টেডিয়াম, বার্মিজ মার্কেট রোড, কচ্ছপিয়া পুকুর, সার্কিট হাউস রোড, গোলদীঘি, বাজারঘাটা পুকুর, লালদীঘি, বন বিভাগ (উত্তর ও দক্ষিণ), জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, পাবলিক লাইব্রেরী, শহীদ দৌলত ময়দান, শহীদ মিনার, জজ কোর্ট, পুলিশ সুপারের কার্যালয়, জেলা পরিষদ, হিল ডাউন সার্কিট হাউজ, হিল টপ সার্কিট হাউস ও রাডার স্টেশন, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, গণপূর্ত অধিদপ্তরের কার্যালয়, লারপাড়া বাস স্ট্যান্ড, হিমছড়ি ও দরিয়ানগর সহ বেশ কয়েকটি এলাকা।