আবরারের গ্রামের বাড়িতে প্রবেশ মুহূর্তে পালালেন বুয়েটের ভিসি

এ, জে, সুজন : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদের গ্রামে গিয়েও গ্রামবাসীর তোপের মুখে পড়ে বাড়িতে ঢুকতে পারেননি উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। এক পর্যায়ে উত্তেজিত জনতার কঠোর অবস্থান ও প্রতিরোধের মুখে পিছু হটতে বাধ্য হন তিনি।
স্থনীয়রা জানান, আবরারের পরিবারকে সমবেদনা এবং তার কবর জিয়ারত করার জন্য সকালে উপাচার্য ঢাকা থেকে কুষ্টিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হন। তার আসার কথা কুষ্টিয়ায় ছড়িয়ে পড়লে আবরারের আত্মীয়স্বজন, সহপাঠী ও গ্রামবাসী আগে থেকেই বাড়ির সামনে অবস্থান নেয়।
বুধবার (৯ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টা নাগাদ ভিসি আবরারের গ্রামের বাড়ি কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গা পৌঁছান। সেখানে তিনি আবরারের বাবা বরকতুল্লাহর সাথে দেখা করেন এবং আবরারের কবর জিয়ারত করেন। কবরত জিয়ারত শেষে পরিবারকে সমবেদনা জানাতে নিহত আবরারের বাড়িতে যাওয়ার সময় গ্রামবাসী ভিসিকে গালিগালাজ ও ভিসিবিরোধী শ্লোগান দিতে থাকে।
এক পর্যায়ে উত্তেজিত জনতা ভিসিকে ঘিরে রেখে আবরার হত্যার বিচারের দাবিতে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে বুয়েট ভিসি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম আবরার বাড়িতে না গিয়েই পিছু হটতে বাধ্য হন। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসকের গাড়িতে তিনি ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।
গ্রামবাসীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আবরারকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হলেও ভিসি তাকে দেখতে যাননি। আর এখন আসছেন কবর জিয়ারত করতে।
আবরারের বাবা সাংবাদিকদের কাছে প্রশ্ন করে বলেন খুনিদের চার্জশীট থেকে অমিত সাহা কিভাবে বাদ পড়লো আপনারা কি
জানেন ?

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন বলেন, ভিসি এখন কুষ্টিয়া সার্কিট হাউসে অব¯’ান করছেন। এখান থেকে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্য রওনা হবেন।