আজহারীর নাম ভাঙিয়ে দেশ-বিদেশে অর্থ আদায়!

বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় ইসলামি বক্তা মিজানুর রহমান আজহারীর নাম ভাঙিয়ে দেশ ও দেশের বাইরে প্রবাসীদের কাছ থেকে অনেকেই আর্থিক অনুদান সংগ্রহ ও চাঁদা তুলছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার বিকালে সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে আজহারী নিজেই এমন অভিযোগ করেছেন।

এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও স্ট্যাটাসের সঙ্গে শেয়ার করেছেন তিনি।

আজহারীর স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে দেয়া হলো-

‘‘বাংলাদেশে আমার গড়া কোনো প্রতিষ্ঠান নেই। কিন্তু ইদানিং দেখতে পাচ্ছি অনেকে আমার নামে প্রতিষ্ঠান বানিয়ে সেটাতে সাহায্যের জন্য প্রবাসীদের কাছে আর্থিক সহযোগিতা চাইছেন।

আসলে, কারো নাম ব্যাবহার করে প্রতিষ্ঠান করতে চাইলে আগে তার কাছ থেকে অফিসিয়ালি পারমিশন নিতে হয়।

আমার নামে কোনো প্রতিষ্ঠান হলে, স্বাভাবিকভাবেই সেটার যাবতীয় দায়ভার আমার ওপর বর্তায়। আর আমি আমার নাম দিয়ে এরকম কোনো প্রতিষ্ঠান করার অনুমতি কাউকে দিইনি।

কে কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে এগুলো করছেন সেটাও আমরা জানি না এবং জানার সুযোগও নেই। আমি যদি কখনও প্রাতিষ্ঠানিক কাজে হাত দেই, তখন সেটা আমিই সবাইকে জানিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবেই করব ইনশাআল্লাহ।

তাই, আমার নামে প্রতিষ্ঠান করা, আমাকে কোনো প্রতিষ্ঠানের এডভাইজরি বোর্ডে রাখা এবং আমার নাম দিয়ে যে কোনো ধরনের আর্থিক অনুদান সংগ্রহ করা ও চাঁদা তোলা থেকে বিরত থাকার জন্য সবাইকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

এসব ব্যাপারে আমাদের শক্ত অবস্থানের কারণ হলো- এ জাতীয় প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে প্রায়ই নানা ধরনের অনিয়ম, অর্থ কেলেংকারি এবং চাইল্ড এবিউজের মতো ঘটনাও শোনা যায়। যেহেতু প্রতিষ্ঠানগুলো আমার নিয়ন্ত্রণাধীন নয় বা আমি এগুলোর দেখভাল করছি না; তাই আমি এগুলো থেকে সম্পূর্ণভাবে দায়িত্বমুক্ত। এগুলো আমার ভেবে কেউ প্রতারিত হবেন না।

আর স্বাভাবিক ভাবে আপনাদের নিয়মিত দানের অংশ হিসেবে যে কোনো ভালো ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে কিংবা মসজিদ উন্নয়নে অথবা এতিমখানায় মুক্তহস্তে দান করুন। এতে কারো কোনো আপত্তি থাকার কথা নয়।

(আল্লাহর রাস্তায় দানের উপমা হচ্ছে এমন একটি শস্যবীজের মতো, যাতে উৎপন্ন হয় সাতটি শিষ আর প্রতিটি শিষে থাকে শত শস্যদানা। আল্লাহ যাকে ইচ্ছা বহুগুণ প্রবৃদ্ধি দান করেন। আল্লাহ তায়ালা অত্যন্ত প্রাচুর্যময়, সর্বজ্ঞ।) [বাকারাহ: ২৬১]’’