অন্তর্জালে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে ‘ইরিনা’

ইউটিউব ভিউয়ের জামানায় এসে ভালোই বিপদে পড়েছেন ক্রিয়েটিভ ক্রিয়েটররা। কারণ, ভাইরাল না হলে ভিউ বাড়বে না, প্রোডাকশন ফ্লপ। আবার প্রেমে মাখামাখি, কমেডি বা বিতর্কিত সাবজেক্ট ছাড়া ভাইরাল করাও মুশকিল। ফলে মান সম্পন্ন সিরিয়াস গল্প বলার কারিগরেরা ক্রমশ হারিয়ে যাচ্ছেন কিংবা হতাশ। সেই হতাশা থেকে ইন্ডাস্ট্রিকে আরেকবার টেনে তোলার কাজটি করছে ‘ইরিনা’ নামের একটি অনালোচিত ফিকশন। এর স্রষ্টা ভিকি জাহেদ আগেও এমন স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে বেশ ক’টি কাজ করেছেন, স্বল্পদৈর্ঘ্য আর নাটকের মোড়কে। এরমধ্যে শেষ প্রকাশিত কাজ ‘ইরিনা’। ১৪ নভেম্বর এটি ইউটিউবে উন্মুক্ত করেছে লাইভ টেক। পাঁচ দিনে এর ভিউ ১৫ লাখ পেরিয়েছে। যদিও এর সবকিছুই ছাপিয়ে যা”েছ বৃত্তের বাইরে থাকা দর্শক-সমালোচকদের নানা মন্তব্য। এরমধ্যে বৃহস্পতিবার সকাল নাগাদ ফেসবুকে ভেসে ওঠা একটি মন্তব্য বেশ উল্লেখযোগ্য। দেশের অন্যতম সব্যসাচী নির্মাতা-সমালোচক মাসুদ হাসান উজ্জ্বল নাটকটি দেখার প্রতিক্রিয়া নিজের দেয়ালে লিখেছেন, ‘খুব ভালো একটা ফিকশন! পরিচালক ভিকি জাহেদের সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত পরিচয় নেই। তবুও তাকে আমি অভিনন্দন জানাতে চাই, এমন একটা সময়োপযোগী কাজ করবার জন্য। নিশো অনেকদিন পর কেবল লাইটার জ¦ালিয়ে বুঝিয়ে দিলো, সে জাত অভিনেতা। বাকি সবার অভিনয়ও যথেষ্ট পরিণত। সবাইকে ধন্যবাদ একটা দরকারি কাজ উপহার দেওয়ার জন্য।’ রাজিব চরিত্রে আফরান নিশোএভাবেই অন্তর্জাল, ইউটিউবের কমেন্ট বাক্স আর নাটকের নানা গ্রুপে দেশ-বিদেশের উল্লেখযোগ্য দর্শক-সমালোচকের প্রশংসায় ডুবে আছেন নির্মাতা ভিকি জাহেদ। প্রতিক্রিয়ায় প্রচারবিমুখ লাজুক স্বভাবের এই নির্মাতা ডুব থেকে মুখ তুলেবললেন, ‘‘লক্ষ্য করেছেন হয় তো, সবসময়ই একটু আলাদা কাজ করার চেষ্টা করি। কিন্তু আমার বিশ্বাস, ‘ইরিনা’র ইউনিকনেস আমার অন্য কাজগুলোকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে ক্রমশ। মেহজাবীন চৌধুরীকে দর্শক একেবারেই ভিন্ন একটি লুকে দেখতে পারছে এই কাজে। সবচেয়ে বড় কথা, কাজটির শেষে আমি যে বার্তাটি দিতে চেয়েছি, সেটি সবার ভেতরে চালান করতে পারলেই আমার নির্মাণ সার্থক হবে। ভাইরাল, ভিউ, প্রশংসা কিংবা জীবন- সবই আসলে ক্ষণিকের আলাপ। থেকে যায় বার্তাটুকু।’’ ভিহি জাহেদ (বামে)‘ইরিনা’র গল্পে দেখা যায়, করোনা মহামারির প্রভাবে রাজিবকে তার মহা মূল্যবান চাকরিটা হারাতে হয়। বর্তমানে সে বেকার এবং হতাশাগ্রস্ত। হতাশায় সে তার পুরানো মদের নেশা আবার শুরু করে। ব্লাড মুন বারে একদিন রাজিবের দেখা হয় রহস্যময়ী এক রমণীর সাথে। যার নাম ইরিনা! সে রাজিবের সাথে একটি খেলা খেলতে চায়। যদি রাজীব খেলাটি জিতে যায়, তাহলে সে পাবে এক কোটি টাকা! কিন্তু‘ এজন্য রাজিবকে খুব অদ্ভুত একটা শর্ত দেয়া হয়। সেই শর্ত মেনে খেলাটি খেলবে, নাকি না- এই চরম সিদ্ধান্তটি নিতে হবে রাজিবকেই। এগিয়ে যায় রহস্যময় ‘ইরিনা’র গল্প। এখানে রাজিব সেজেছেন আফরান নিশো আর ইরিনা তো মেহজাবীন চৌধুরীই। আরেকটি দরকারি চরিত্রে অভিনয় করেছেন সালাহ খানম নাদিয়া।